Professor Azizur Rahman Khalifa Mathematician|EduPort

Azizur-rahman Khalifa Professor
Professor Azizur rahman Khalifa Mathematician

আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার সম্পর্কে পূর্বের অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করুন। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যারের সম্পর্কে পরবর্তী অংশ। প্রফেসর আব্দুস সালাম স্যার আরো জানালেন, আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যারের সাথে সেদিন আলাদা করে কথা বলার সুযোগ হয় নি। তবে ১৯৭২ সালে দৌলতপুর উপজেলার দৌলতপুর কলেজের কার্যক্রম শুরু হয় বর্তমান হোসেনাবাদ সরকারি টেকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের বিল্ডিঙে। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণিতের অধ্যাপক থেকে অবসর গ্রহণ করার পর দৌলতপুর কলেজের প্রিন্সিপ্যাল ছিলেন। ঐ সময় আমি ভাইস প্রিন্সিপ্যাল ছিলাম।

আজিজুর রহমান খলিফা স্যারের জন্মস্থান কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলার রিফাইতপুর ইউনিয়নের লক্ষীখোলা গ্রামে। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার খুব অভাব অনটনের মধ্যেই বড় হয়েছেন। তাঁর পরিবারের লোকজন পালকী টানার কাজ করতেন। তিনি অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন, খুব পরিশ্রমী ছিলেন। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিতের অধ্যাপক ছিলেন। এরপর তিনি অত্র অঞ্চলে শিক্ষা বিস্তারে ব্যাপক ভূমিকা পালন করেন। তিনি এলাকার লোকদের বিনামূল্যে হোমিও চিকিৎসা করতেন। তিনি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটে যেতেন। শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন  ভাবে উৎসাহ উদ্দীপনা দিতেন। প্রফেসর আব্দুস সালাম স্যার আরো জানালেন, ১৯৭৩ বা ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিত বিষয়ে “থিওরি অফ নাম্বারস” Theory Of Numbers (Number system) কোর্সটি পড়ানোর জন্য কোন শিক্ষক পাওয়া যাচ্ছিলো না। Dhaka University ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যারকে পূণরায় শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেন। এরপর Azizur Rahman Khalifa স্যার আবার ঢাকায় চলে যাওয়ার পর আর কোন যোগাযোগ হয় নি। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যারের বিষয়ে আমাদের জানার কৌতুহল শেষ হচ্ছিল না। প্রফেসর আব্দুস সালাম স্যারের বাসা থেকে যখন বের হই তখন রাত সাড়ে নয়টা। জামিরুল স্যারকে নিয়ে এবার গেলাম কুষ্টিয়া সরকারি কলেজের গণিত বিভাগের প্রাক্তন বিভাগীয় প্রধান জাহাঙ্গীর স্যারের বাসায়। স্যারের কাছে আজিজুর রহমান খলিফা স্যারের কথা জিজ্ঞাসা করায় স্যার আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়লেন। আমি (আনিসুর রহমান) জাহাঙীর স্যারের ছাত্র ছিলাম এই কুষ্টিয়া সরকারি কলেজেই। স্যার বললেন, আমি অনেকবার শিক্ষার্থীদের নিকট জানতে চেয়েছি, আমাদের দেশের দুই/এক জন গণিতজ্ঞের নাম তোমরা বলতে পারবে কি-না? শিক্ষার্থীরা মুখের দিকে ফ্যাল ফ্যাল করে চেয়ে থাকে যেন আমি তাদের কাছে আমাজন সম্পর্কে কিছু জানতে চাইছি। জাহাঙ্গীর স্যার বললেন, আমরা গণিতে আজিজুর রহমান খলিফাকে এ আর খলিফা AR Khalifa বলে থাকি। গণিতে উচ্চ মাধ্যমিক ও অনার্স স্তরে এ আর খলিফা’স থিওরি Khalifa’s Theorem পড়ানো হয়। জাহাঙ্গীর স্যার আমাদের সাথে খলিফা’স থিওরি নিয়ে আলোচনা করলেন।

খলিফার থিওরির মূল কথা হলো, তিনটি বিন্দুগামী বৃত্তের সাধারণ সমীকরণ নির্ণয় বিষয়ক উপপাদ্য এটি। এই উপপাদ্যের সূত্র দিয়ে খুব সহজেই বৃত্তের কেন্দ্র ও ব্যাসার্ধ মাপা যায়। জাহাঙ্গীর স্যার আরো জানালেন, এ আর খলিফা AR Khalifa স্যার অতিশয় ভদ্র মানুষ ছিলেন। তিনি সবাইকে আগে সালাম দিতেন। একবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের দুই শিক্ষার্থী যুক্তি করেছে Khalifa স্যারকে আগে সালাম দেব। এই কাজটি করার জন্য তারা পেছন থেকে এসেছে। খলিফা স্যার শব্দ শুনে ভাবলেন কেউ এসেছে। স্যার সালাম দিতে দিতে পেছন ফিরলেন। শিক্ষার্থীরা বলল স্যার, আপনি আজও জিতে গেলেন। স্যার জিজ্ঞাসা করলেন কী জিতলাম? শিক্ষার্থী দুইজন বলল, স্যার আমরা যুক্তি করে এসেছিলাম আপনাকে আগে সালাম দেব। কিন্ত স্যার, আপনি আজও জিতে গেলেন। শিক্ষার্থী দুইজন আরো বলল, স্যার আপনি জ্ঞান-গরিমায় এত বড় হয়েও এই কাজগুলো কীভাবে সম্পন্ন করেন? আজিজুর রহমান খলিফা স্যার জবাবে বলেছিলেন, “যিনি জ্ঞান, গরিমা ও পাণ্ডিত্যে বড় তাঁকে তোমরা কেন বিনয়ে ছোট করবে?” স্যারের এই কথা আজও কী তাৎপর্য বহণ করে তা বলে শেষ করা যাবে না। আজিজুর রহমান খলিফা স্যারের লেখা বই “গণিত কাঁদিয়া ফেরে” র ফটোকপি জাহাঙ্গীর স্যারের নিকট আছে। “গণিত কাঁদিয়া ফেরে” থেকে জাহাঙ্গীর স্যার মজার একটি ঘটনার কথা বললেন। এটি ষাটের দশকের ঘটনা। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিতের একটি বিশেষ সমস্যা কেউ যখন সমাধান করতে পারেন নি। তখন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন একজন শিক্ষক বলেছিলেন, এটি হয়ত খলিফা সমাধান করতে পারবে। এই কথা শুনে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্র স্যারের বাড়ি এসেছিলেন। স্যার বাড়িতেই গৃহস্থালির কাজ করছিলেন। ছাত্র দুইজন খলিফা স্যারকে জিজ্ঞাসা করলেন, খলিফা স্যার বাড়ি আছেন কি না? স্যার জবাবে বললেন, কী দরকার উনার সাথে? ছাত্র দুজন জানালো আপনি বুঝতে পারবেন না। আমরা স্যারের কাছেই আমাদের কথা বলতে চাই। স্যার রশিকতা করে বললেন, আমাকে বললে আমি স্যারকে জানাবো। তাঁরা তাঁদের সমস্যার কথা বললে, স্যার বাড়ির বেড়ার সাথে একটু উঁচুতে ডান পা তুলে উরুর উপরে ছাত্রের দেয়া কাগজে গণিতের সমাধান করে দিয়ে বললেন, দেখো মনে হয় হয়েছে। পরে ছাত্ররা খলিফা স্যারকে চিনতে পেরে ক্ষমাও চেয়েছিলেন। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার হাজারো শিক্ষার্থীর অনুপ্রেরণা। Khalifa স্যার ছিলেন আধুনিক । তিনি ভেঙ্গে গড়তে চাইতেন। তিনি চাইতেন সব কিছুই প্রকাশ হোক গণিত দিয়ে। আজিজুর রহমান খলিফা Azizur Rahman Khalifa স্যার আপনি ছিলেন, আপনি আছেন, আপনি থাকবেন গণিত প্রিয়দের হৃদয়ে।

আনিসুর রহমান, প্রভাষক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ভেড়ামারা কলেজ, ভেড়ামারা, কুষ্টিয়া।

Share to future view

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *