Biology পড়ার সহজ টিপস

how to get hight marks in biology
how to read biology

জীব বিজ্ঞানকে আমরা বিজ্ঞানের শাখা হিসেবে যতটা না স্বীকার করি ততটা গুরুত্ব দিতে চাই না। কিন্তু একবার ভেবে দেখো বিজ্ঞানের এই শাখাটি ছাড়া বর্তমান বায়োটেকনোলজির যুগে চলা কতটা মুশকিলের কাজ। আমরা যখন এই বিষয়ের গুরুত্ব উপলব্ধি করতে পারি তখন আর হাতে পর্যাপ্ত সময় পাই না। ট্রেন (অর্থাৎ পরীক্ষা) যখন দ্বারে এসে পৌছায় তথন আমরা নাকে মুখে খাবার (অর্থাৎ পড়া) গুজে কামরায় (অর্থাৎ পরীক্ষার হলে) উঠে হরহড়িয়ে বমি করে দেই। এই বিষয়টিকে অবহেলার কারণে পরবর্তী জীবনে আমাদেরকে ঠকতে হয় পদে পদে। কিন্তু হওয়ার কথা ছিলো উল্টো। জীববিজ্ঞানকে ভালোবেসে আমাদের আপন করে নেওয়ার কথা ছিলো প্রথম থেকেই। কারণ এই সাবজেক্টের বাস্তব উপকরণ আমাদের সব সময় থাকে হাতের নাগালেই থাকে। এবার তোমরা প্রশ্ন করতে পারো, কীভাবে এটি সম্ভব। আমি বলবো, কিছুই না। নিচের এই ৭টি ধাপ অনুসরণ করো আর জয় করে নাও জীব বিজ্ঞান ভীতি বা অনিহা।

জিহ্বায় থাকুক জীববিজ্ঞান

ধাপ ০১ ছবি আঁকো: জীব বিজ্ঞানে প্রচুর চিত্র রয়েছে। এগুলো বুঝে পড়লে পড়তে সুবিধা হয়। আর বুঝে পড়ার সবচেয়ে সহজ মাধ্যম হলো ছবিগুলো এঁকে ফেলা। প্রথমবার ছবি ভালো হবে না, তাই বার বার আঁকতে হবে। এঁকে নিজেই নিজেকে মার্কিং করবে। আর অতি অবশ্যই ছবিগুলোকে সঠিকভাবে লেবেলিং করতে হবে। এতে বিষয়বস্তু পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে মনে থাকবে।

ধাপ ০২ বাস্তব উপকরণ ব্যবহার করো: তুমি যে বিষয় নিয়ে পড়বে, চেষ্টা করবে- তার বাস্তব উপকরণ দেখে পড়তে। এতে জিনিসটি হাতে কলমে বুঝে ফেলা সহজ হবে। বাস্তব উপকরণ পাওয়া না গেলে ধাপ ৩ লক্ষ করো-

ধাপ ০৩ ইন্টারনেট ঘাটো: বাস্তব উপকরণ সব সময় তুমি পাবে না আর ল্যাব সুবিধাও সব জায়গায় পাওয়াটা সম্ভব নয়, তাই বুঝে পড়তে হলে নেট ঘাটার বিকল্প নেই। যেমন তুমি একটা জটিল স্ট্রাকচার বইয়ের ছবি দেখেও বুঝতে পারছো না তাহলে বিষয়টির কি-ওয়ার্ডগুলো গুগলে সার্চ করো এখানে ছবি, লেখা, ভিডিও, এনিমেশনসহ বিভিন্ন ফরমেটের স্ট্রাকচারটি দেখে ফেলতে পারো।

ধাপ ০৪ কাউকে পড়াও: মানুষের উপর দায়িত্ব না পড়লে বিষয়টিকে হালকা করে দেখে। তুমি তোমার চেয়ে উইক একজন সহপাঠির দায়িত্ব নাও। তাকে তুমি যা বুঝো তা একটা নির্দিষ্ট সময়ে পড়াতে থাকো। এতে সেও উপকৃত হবে এবং তুমি যখন অন্যকে শেখাতে যাবে দেখবে বিষয়টি এমনিতেই শিখে ফেলতে পারছো।

ধাপ ০৫ সূত্র তৈরি করে মুখস্ত: বিজ্ঞানের এই শাখায় অনেক শব্দ মুখস্ত করে রাখতে হয়, এগুলো ছোটো ছোটো সূত্র ব্যবহার করে মুখস্ত রাখতে পারো। মুখস্ত করার অনেক অনেক পাওয়া যায়, তুমি চাইলে নিজের মতো করে তৈরিও করে নিতে পারো।

ধাপ ০৬ নোট রাখা: প্রতিদিন কি কি পড়লে তার একটি সামারি নোট করে রাখতে পারো। নতুন দিন পড়া শুরু করার আগে সেগুলোতে একবার চোখ বুলিয়ে নিলে ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারবে।

ধাপ ০৭ ক্লাস মিস না দেওয়া: অনেকের ক্লাসের পড়াকে অবহেলা করে, এই কাজ মোটেও করা যাবে না। যত বেশি সম্ভব ক্লাসে এটেন্ড করতে হবে। ক্লাসগুলো মনোযোগ দিয়ে করতে হবে এবং ৬ নং ধাপটি অনুসরণ করতে হবে অর্থাৎ নোট রাখতে হবে সবকিছু। শিক্ষক যত ভালোই ক্লাস নেন না কেনো, তুমি যদি মনোযোগ ধরে না রাখতে পারো এবং নোটস না নাও সেটা কোনো কাজেই আসবে না।

সর্বোপোরি জানার আগ্রহটাকে জাগিয়ে রাখতে হবে এবং কোনো বিষয়কেই হালকা করে দেখা যাবে না। যখন যে কাজটি করবে সেই কাজকে ভালোবেসে করলে দেখবে সেই কাজে তোমার সফলতা কেউ আটকে রাখতে পারবে না। তোমাদের জন্য শুভ কামনা রইল।

ফয়সাল আহমেদ

সহকারী শিক্ষক

বিটিআরআই উচ্চ বিদ্যালয়, শ্রীমঙ্গল।

আরো পড়ুন ডাক্তার হব, কিন্তু গণিত পড়তে চাই না।

পড়ুন মেডিকেল অ্যাডমিশনে অনামিকার সফলতার গল্প

Share to future view

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *